top of page

২০ হাজার বেতনেও হতে পারেন কোটিপতি, কীভাবে করবেন সংসার খরচ ?

ভাল বেতন পেয়েও অনেকেই করতে পারেন না এই কাজ। কোটিপতি (Crorepati) হওয়া তো দূর , সংসারের খরচ মেটাতে হিমশিম খেতে হয় বেতনভুক কর্মচারীদের। সেই ক্ষেত্রে মাসে ৫০ হাজার টাকা বেতন হলে কীভাবে খরচ করবেন সংসারে। রইল ধনী হওয়ার সহজ পথ।


আপনার বেতন প্রতি মাসে 20,000 টাকা হলেও, আপনি এই বেতন থেকে সঞ্চয় করতে পারেন। সেই ক্ষেত্রে বেতন আসার সাথে সাথে সঞ্চয়ের জন্য নির্ধারিত পরিমাণ অন্য অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করুন। আপনার যদি অন্য অ্যাকাউন্ট না থাকে, তাহলে সঞ্চয়ের জন্য আলাদা করে রাখা অর্থকে কখনই স্পর্শ করবেন না।



আপনি যদি সঞ্চয় সম্পর্কে সিরিয়াস না হন তবে প্রাথমিকভাবে আপনার বেতনের মাত্র 10 শতাংশ সঞ্চয় করুন। অর্থাৎ প্রথম 6 মাসের জন্য প্রতি মাসে 2000 টাকা সঞ্চয় করুন৷


আজ দেশে শিক্ষিত বেশিরভাগ লোকের বেতন প্রায় 50,000 টাকা। যদি আপনার বেতন প্রায় 50 হাজার টাকা হয়, তাহলে জেনে নিন আপনার প্রতি মাসে কত টাকা সঞ্চয় করা উচিত। কোথায় বিনিয়োগ করলে ভবিষ্যতে বড় তহবিল হয়ে উঠতে তা একানে বুঝতে পারবেন। যদি আপনি বিবাহিত হন এবং আপনার দুটি সন্তান থাকে তবে 50,000 টাকার কতটা সঞ্চয় করতে হবে।


সাধারণত, প্রাইভেট চাকুরে ব্যক্তিদের প্রতি মাসে তাদের বেতনের প্রায় 30 শতাংশ সঞ্চয় করা উচিত। নিয়ম হল প্রতি মাসে 15,000 টাকা বাঁচাতে হবে। যদি আপনার বেতন প্রতি মাসে 50 হাজার টাকা হয় এবং আপনি প্রতি মাসে 15 হাজার টাকা সঞ্চয় না করেন, তাহলে আপনি আপনার বিনিয়োগের লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেন না। আপনাকে অবিলম্বে এই বিষয়ে সতর্ক হতে হবে।


আপনি যদি সঞ্চয় করতে শুরু করেন তবে 10 শতাংশ দিয়ে শুরু করুন। কিন্তু প্রতি 6 মাস অন্তর এটি বাড়াতে থাকুন , যতক্ষণ না আপনি মাসিক 30 শতাংশ সংরক্ষণ করছেন। আপনি শুরুতে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হবেন, আপনি আপনার খরচ বহন করতে পারবেন না কারণ আপনি ইতিমধ্যে আপনার পুরো বেতন খরচ করার অভ্যাস করে ফেলেছেন।


কিন্তু ৬ মাসের মধ্যে আপনি নিজেই আপনার অভ্যাস পরিবর্তন করতে পারবেন। সবার আগে খরচের তালিকা তৈরি করুন। প্রথমে যা প্রয়োজন তার জন্য তালিকা তৈরি করুন, তারপর খরচের লিস্ট করুন। পরে নিজে বুঝে ডিডাকশনের পথে হাঁটুন।


অপ্রয়োজনীয় খরচ এড়িয়ে চলুন ১ আপনি যদি মাসে 4 বার বাইরে খাওয়ার অভ্যাস করেন তবে তা কমিয়ে মাসে 2 বার করুন। ২ এছাড়াও অপ্রয়োজনীয় ব্যয়ের একটি তালিকা তৈরি করুন, যা আপনি প্রতি মাসে অপ্রয়োজনীয়ভাবে ব্যয় করেন সেগুলি দেখে নিন। ৩ প্রত্যেক ব্যক্তি তাদের বেতনের 10 শতাংশ অপ্রয়োজনীয়ভাবে ব্যয় করে।


এই অনলাইন যুগে আপনার যদি একটি ক্রেডিট কার্ড থাকে, তবে তার ব্যবহার বুঝে করুন। ৫ আপনার যদি একাধিক ক্রেডিট কার্ড থাকে,তবে তাদের মধ্যে কয়েকটি অবিলম্বে বন্ধ করুন। ৬ এছাড়াও অনলাইন শপিং এড়িয়ে চলুন।


আপনি যখন কেনাকাটা করতে যান, বাড়ি থেকে বের হওয়ার আগে একটি তালিকা তৈরি করুন। ৮ আর একটা কথা মনে রাখবেন, বেতন পাওয়ার সাথে সাথে অফার বা অপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনবেন না। এই পদ্ধতিতে আপনি প্রতি মাসে আপনার বেতনের 30 শতাংশ সংরক্ষণ করতে পারেন।


সঠিক জায়গায় সঞ্চয় বিনিয়োগ করার প্রয়োজনীয়তা বুঝুন এই সূত্রের সাহায্যে। ১ 50 হাজার টাকা বেতনের একজন ব্যক্তি বার্ষিক 1.80 লাখ টাকা বাঁচাতে পারবেন। ২ আপনি যখন প্রতি মাসে 15,000 টাকা সঞ্চয় করেন, তখন এর 5,000 টাকা জরুরি তহবিল হিসাবে রাখুন। ৩ আপনি একটি মিউচুয়াল ফান্ডে প্রতি মাসে 5 টাকা SIP করতে পারেন।


এ ছাড়া বাকি ৫ হাজার টাকা রেকারিং ডিপোজিট বা গোল্ড বন্ডে বিনিয়োগ করা যাবে। ৫ বেতন বাড়লে সেই অনুযায়ী বিনিয়োগের পরিমাণ বাড়াতে থাকুন। ৬ আপনি যদি 10 বছর ধরে এই ফর্মুলা দিয়ে সঞ্চয় এবং বিনিয়োগ চালিয়ে যান তবে আপনি ভবিষ্যতে আর্থিক সংকটের মুখোমুখি হবেন না। বিপদের সময়েও এই তহবিল অনেক সাহায্য করবে।


Comments


bottom of page