top of page

বাংলার যুবকরাও প্রতি মাসে পাবেন টাকা! প্রকল্প পশ্চিমবঙ্গ সরকারের, লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের পাল্টা

রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) সরকার (Government Of West Bengal) একের পর এক জনদরদী প্রকল্প এনে সকলকে চমকে দিয়েছে। মূলত রাজ্যের বেকার থেকে শুরু করে মহিলা, বিধবা, বয়স্ক মানুষের পাশে দাঁড়াতে একের পর এক প্রকল্প এনেছে যাতে এই প্রকল্পগুলির সুবিধা নিয়ে সকলেই শান্তিতে বসবাস করতে পারেন।



বর্তমান সময়ে রাজ্য সরকারের বহু প্রকল্প চলে যার মধ্যে হল যুবশ্রী, কন্যাশ্রী, পথশ্রী, লক্ষ্মীর ভান্ডার ইত্যাদি। আর প্রত্যেকটি প্রকল্পই একদম সুপার ডুপার হিট হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে তবে আজ এই প্রতিবেদনে আলোচনা হবে রাজ্য সরকারের একটি প্রকল্প যুবশ্রী নিয়ে। এই যুবশ্রী প্রকল্প নিয়ে প্রকাশ্যে উঠে এসেছে, এক বড় রকমের তথ্য যা শুনলে আপনিও চমকে উঠবেন। বিশেষ করে আপনিও যদি বেকার হয়ে থাকেন তাহলে এই প্রতিবেদনটি রইল শুধুমাত্র আপনার জন্য। দেশ জুড়ে বেকারের সংখ্যা

ক্রমশ বেড়েই চলেছে। বেকারের সংখ্যা বাড়ছে এই বাংলাতেও। তবে রাজ্যে শিক্ষিত বেকার যুবক-যুবতীদের পাশে দাঁড়াতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার যুবশ্রী নামে একটি প্রকল্প এনেছে।


দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে এই প্রকল্প একদম রমরমিয়ে চলছে। এদিকে এই প্রকল্প নিয়ে প্রকাশ্যে এলো বড় রকমের আপডেট। জানা গিয়েছে আপনি যদি বেকার হন তাহলে আপনাকে প্রতিমাস অন্তর ১৫০০ টাকা করে দেবে রাজ্য সরকার হ্যাঁ একদম ঠিকই শুনেছেন। যুবশ্রী প্রকল্প আবেদন করলেই আপনি এই কর করে ১৫০০ টাকা পেয়ে যাবেন।

যুবশ্রী প্রকল্প ২০২৩-এর জন্য আবেদন করবেন কীভাবে?

  • অফিসিয়াল ওয়েবসাইট https://employmentbankwb.gov.in ক্লিক করুন। এরপর এখন বাম অপশন থেকে জব সিকার অপশন সিলেক্ট করুন এবং নিউ এনরোলমেন্টে ক্লিক করুন।

  • আবেদন করার আগে সমস্ত বিধি ও শর্তাবলী পড়ুন, তারপরে I agree and Select continue and Accept এ ক্লিক করুন। আপনার ব্যক্তিগত বিবরণ যেমন আপনার নাম, পিতা-মাতা / স্বামীর নাম, জাত, বৈবাহিক অবস্থা, জন্ম তারিখ ইত্যাদি লিখুন।

  • আপনার বর্তমান যোগাযোগের বিবরণ যেমন ডাক ঠিকানা, রাজ্য / মহকুমা / জেলার নাম, পিন কোড, এক্সচেঞ্জ, মোবাইল নম্বর, আধার নম্বর ইত্যাদি পূরণ করুন। শিক্ষাগত যোগ্যতা যেমন পাস পরীক্ষা, বোর্ড/বিশ্ববিদ্যালয়/কাউন্সিলের নাম, পাসের বছর, প্রাপ্ত মোট নম্বর পূরণ করুন।

  • এখন আপনার অতিরিক্ত বিবরণ যেমন ভাষা, উচ্চতা, ওজন, আবাসিক প্রমাণ নম্বর লিখুন এবং তারপরে ক্যাপচা লিখুন এবং সাবমিটে ক্লিক করুন।

  • প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যেমন জন্ম তারিখ, বাসস্থানের প্রমাণ, জাতিগত শংসাপত্র, দশম শ্রেণির মার্কশিট এবং ফটো ইত্যাদি আপলোড করুন।

  • আপনার দ্বারা প্রদত্ত সমস্ত তথ্য পুনরায় পরীক্ষা করুন এবং তারপরে পর্যালোচনা এবং আবেদন জমা দিন অপশনে ক্লিক করুন।

  • অনলাইনে আবেদন পত্র জমা দেওয়ার পর আবেদন ফরমের প্রিন্টআউট ডাউনলোড করে নিন। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংযুক্ত করুন এবং এটি ৯০ দিনের মধ্যে এসডিও অফিসে জমা দিন।

  • তবে এখানে আরো কিছু জিনিস জানিয়ে দেওয়া জরুরি। যেমন আবেদনকারীকে অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে। যুবক-যুবতীদের বয়স ১৮ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে হতে হবে। আবেদনকারীকে অবশ্যই মাধ্যমিক পাস হতে হবে। উচ্চশিক্ষিত হলেও অসুবিধা নেই।

এছাড়া আবেদনকারীর কাছে অবশ্যই থাকতে হবে আধার কার্ড, ভোটার আইডি ,মাধ্যমিকের মার্কশিট ও অ্যাডমিট কার্ড, যেকোনও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট, আবেদনকারীর পাসপোর্ট সাইজ ফটো ও কাস্ট সার্টিফিকেট থাকলে তার জেরক্স।

Comments


bottom of page