top of page

২০২৩ তো চলে গেল! ২০২৪-এ টাকা বাঁচিয়ে ধনী হতে হলে এই ৫ টিপস মাথায় রাখুন

অনেকে টাকা সঞ্চয় করে কিন্তু তা অ্যাকাউন্টে থেকে যায় এবং তারপর হঠাৎ করে কোথাও খরচ হয়ে যায় এবং আবার খালি হয়ে যায়


যদি আপনার খরচ অনেক বেশি হয় এবং মাসের শেষে আপনার সম্পূর্ণ আয় শেষ হয়ে যায় এবং আপনি কিছু সঞ্চয় করতে না পারেন, তাহলে আপনার এই অভ্যাসটি পরিবর্তন করা উচিত। অন্যথায় ভবিষ্যতে বড় সমস্যা হতে পারে।


সঞ্চয়ের ক্ষেত্রে, ৫০-৩০-২০ নিয়ম অনুসরণ করুন এবং যে কোনও ক্ষেত্রে আপনার বেতনের ২০ শতাংশ সংরক্ষণ করুন। অনেকে টাকা সঞ্চয় করে, কিন্তু তা অ্যাকাউন্টে থেকে যায় এবং তারপর হঠাৎ করে কোথাও খরচ হয়ে যায় এবং আবার খালি হয়ে যায়।


প্রতি মাসে আপনার আয়ের ২০ শতাংশ সঞ্চয় করার পরে, এটি কোথাও বিনিয়োগ করুন। আপনি বিভিন্ন স্কিমে বিনিয়োগ করেন। বিনিয়োগের ক্ষেত্রেও শৃঙ্খলাবদ্ধ হতে হবে।


বিনিয়োগই একমাত্র উপায় যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আপনার সম্পদ দ্রুত বৃদ্ধি করতে পারে। আপনিও যদি একজন হয়ে থাকেন, তাহলে এই ভুলটি সংশোধন করে পরের বছর একটি স্বাস্থ্য বিমা প্ল্যান কিনুন।


স্বাস্থ্য সংক্রান্ত জরুরি যে কোনো সময় ঘটতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে প্রচুর সঞ্চয় করা টাকা হঠাৎ করেই খরচ হয়ে যায় এবং তারপরে আপনি আফসোস করতে থাকেন।



আপনি যদি আগে থেকে স্বাস্থ্য বিমা কিনে থাকেন তবে এটি আপনাকে এবং আপনার পরিবারকে সুরক্ষা কভার দেবে এবং কঠিন সময়ে আপনার জীবন বাঁচাতে সাহায্য করবে। এটি আপনার অর্থও বাঁচাবে। আপনি যত কম বয়সে স্বাস্থ্য বিমা প্ল্যান কিনবেন, তত ভাল দাম পাবেন।


আপনি যদি একটি বাড়ির জন্য, শিক্ষার জন্য, আপনার ব্যবসা বাড়ানোর জন্য বা যে কোনও জরুরি পরিস্থিতিতে ঋণ নেন, তবে এটি আপনার প্রয়োজন, তবে আপনি যদি কেনাকাটা, ভ্রমণের জন্য, একটি দামী স্মার্টফোন কেনার জন্য ঋণ নিচ্ছেন, যদি হ্যাঁ, তাহলে এটি একটি অপব্যয় ব্যয়। এই খরচ বন্ধ করুন।


নতুন বছরে একটি সংকল্প নিন যে আপনি এই ধরনের অপ্রয়োজনীয় ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করবেন। ধনী হওয়া এবং অন্যদের কাছে ধনী দেখানোর মধ্যে একটি বড় পার্থক্য রয়েছে।


অতএব, পরের বছর, আপনার সম্পদ প্রদর্শনের এই অভ্যাসটিকে চিরতরে বিদায় দিন। সময়মতো এই অভ্যাস ত্যাগ না করলে ভবিষ্যতে অনেক অনুতাপ করতে হতে পারে।




Comments


bottom of page